LIC Plan: LIC-র এই পলিসিতে রোজ রাখুন ৮৭ টাকা, রিটার্ন পাবেন কড়কড়ে ১১ লাখ টাকা!

LIC Investment Plan: এখন মোটা টাকা সঞ্চয়ের জন্য সকলেই বিভিন্ন প্রকল্পে অর্থ বিনিয়োগ করে থাকেন। এক্ষেত্রে ব্যাংক এবং পোস্ট অফিসের পর সাধারণ মানুষের কাছে সবথেকে নির্ভরযোগ্য প্রতিষ্ঠান হল এলআইসি অর্থাৎ…

Published By: Papiya Paul | Published On:

LIC Investment Plan: এখন মোটা টাকা সঞ্চয়ের জন্য সকলেই বিভিন্ন প্রকল্পে অর্থ বিনিয়োগ করে থাকেন। এক্ষেত্রে ব্যাংক এবং পোস্ট অফিসের পর সাধারণ মানুষের কাছে সবথেকে নির্ভরযোগ্য প্রতিষ্ঠান হল এলআইসি অর্থাৎ লাইফ ইন্সুরেন্স কর্পোরেশন অফ ইন্ডিয়া(Life Insurance Corporation Of India)। এই সংস্থাও গ্রাহকদের আকৃষ্ট করার জন্য নানা রকমের সুযোগ সুবিধা দিয়ে থাকে।

এমনকি মহিলাদের জন্যেও এই সংস্থার তরফ থেকে নানারকমের অফার রয়েছে। ঠিক যেমন রোজ মাত্র ৮৭ টাকা বিনিয়োগ করে ম্যাচিউরিটির পর ১১ লক্ষ টাকা মিলতে পারে। এই বিশেষ প্রকল্পটি হল ‘এলআইসি আধার শিলা প্ল্যান’। এই বিশেষ প্রকল্পটি মহিলাদের জন্যই পরিকল্পনা করা হয়েছে।

আরো পড়ুন: Jio: ৮৯ টাকার রিচার্জ প্ল্যানে আবার ১৩ টাকার ছাড়! Jio-র এই প্ল্যানে মিলবে ১ বছরের ‘ব্যাপক’ সুবিধা

এই প্ল্যানে বিনিয়োগ শেষের পর নিশ্চিত রিটার্ন পাওয়া যাবে এবং বিনিয়োগকারীর হঠাৎ মৃত্যু ঘটলে পরিবারকে এলআইসির তরফ থেকে আর্থিক সাহায্য দেওয়া হবে। মহিলাদের আর্থিক নিরাপত্তার কথা ভেবেই এলআইসি-এর পক্ষ থেকে এই বিশেষ প্রকল্প চালু করা হয়েছে। এই প্রকল্পে চাকুরীজীবী মহিলা ছাড়াও গৃহবধূরা অর্থ বিনিয়োগ করতে পারবেন।

এখানে রোজ মাত্র ৮৭ টাকা বিনিয়োগ করে মেয়াদ শেষে ১১ লক্ষ টাকা মিলতে পারে। চলুন তাহলে এই প্রকল্প সম্পর্কে আরো বিস্তারিত তথ্য জেনে নেওয়া যাক। এই প্রকল্পে ১৮ বছর থেকে ৫৫ বছর বয়সী মহিলারা অর্থ বিনিয়োগ করতে পারবেন। এখানে ম্যাচুরিটির জন্য সর্বোচ্চ বয়স ৭০ বছর অব্দি ধার্য করা হয়েছে।

আরো পড়ুন: Investment: মাত্র ১০ বছরে পাবেন ৩০ লক্ষ টাকা! কিভাবে কোথায় বিনিয়োগ করলে হবেন লাখপতি? রইল সহজ হিসেব

এখানে ন্যূনতম ৭৫ হাজার টাকা থেকে ৩ লক্ষ টাকা পর্যন্ত বিনিয়োগ করা যাবে। এখানে যদি কোন মহিলা রোজ ৮৭ টাকা করে জমানো শুরু করেন, তাহলে এক বছরে তার সঞ্চিত অর্থ হবে ৩১ হাজার ৭৫৫ টাকা। অর্থাৎ ১০ বছরের তিনি মোট ইনভেস্ট করছেন ৩ লক্ষ ১৭ হাজার ৫৫০ টাকা। আর ৫৫ বছর বয়সী কোন মহিলা যদি ১৫ বছরের জন্য বিনিয়োগ করেন সেক্ষেত্রে তিনি তার ৭০ বছর বয়সে হাতে পেয়ে যাবেন ১১ লক্ষ টাকা।

এক্ষেত্রে পলিসি হোল্ডার যদি মেয়াদ শেষ হওয়া পর্যন্ত জীবিত থাকেন তাহলে তাকে ম্যাচুরিটির সমস্ত বেনিফিট দেওয়া হবে। আর যদি পলিসি হোল্ডারের আকস্মিক মৃত্যু ঘটে তাহলে এই পলিসির নমিনি সমস্ত বেনিফিট পেয়ে যাবেন। এই আধার শিলা প্ল্যানে বিনিয়োগকারী প্রত্যেক মাসে, প্রত্যেক তিন মাস অন্তর, কিংবা প্রত্যেক ছয় মাস অন্তর অথবা প্রত্যেক বছরে একবার অর্থ পেমেন্ট করতে পারবেন। তবে একবার যে পদ্ধতিতে বিনিয়োগ করা হবে পরবর্তীকালে সেই মোডের ধারাবাহিকতা অবশ্যই বজায় রাখতে হবে।

About Author
Papiya Paul

সাড়ে ৪ বছরের বেশি সময় ডিজিটাল সাংবাদিকতার সঙ্গে যুক্ত। যে কোনো বিষয়ে কনটেন্ট লেখার দক্ষতা রয়েছে। সঠিক এবং ...

আরও পড়ুন